বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১২:১৮ অপরাহ্ন

ব্যবসার যে ৫ টি ভুল আপনার ব্যবসা ধ্বংস করে দিতে পারে

Reporter Name / ৩৫৪ Time View
Update Time : বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১২:১৮ অপরাহ্ন

শখের বশে হোক কিংবা জীবিকার তাগিদে, করোনা মহামারীর এই সময় টা তে ছোট থেকে বড় অনেক ব্যবসা গড়ে উঠেছে। প্রথমে আমাদের আশেপাশের লোকদের দিকেই তাকাই। স্বজনদের ভেতরে এমন দুই থেকে তিন জন লোক খুঁজে পাওয়া যাবে যারা বিজনেস এর সাথে জড়িত। বিজনেস এর মাধ্যমগুলো হতে পারে অনলাইন ভিত্তিক কিংবা অনলাইন ব্যতীত। বাংলাদেশে প্রতিদিন-ই কেও না কেও এরকম নতুন ব্যবসা শুরু করার জন্য মনস্থির করছে। এবং কেও কেও ব্যবসা শুরু করার প্রথমেই অনেক টাকা ইনভেস্ট করে ফেলছে। টাকার পাশাপাশি অনেক কর্মীদের ও নিয়োগ দিয়ে ফেলছে তারা। কিন্তু তারা কি চূড়ান্ত সফলতা পাচ্ছে? নিশ্চয়ই না। বিজনেসে ব্যর্থ হওয়ার কারণে তারা হতাশায় ভুগছে কারণ তারা ইতোমধ্যে অনেক সময়, টাকা ইনভেস্ট করে ফেলেছে। এমনকি তারা তাদের লেজিনেস, ভুল বিজনেস পার্টনার ইত্যাদির জন্য ভেতরে ভেতরে ধুকে মরছে! এখন হয়তো তারা মাথায় হাত দিয়ে ভাবছে কি ভুলের কারণে ব্যবসা টা ধ্বংস হয়ে গেলো। হুট করে যারা ব্যবসা শুরু করে তারা হরহামেশাই কিছু ভুল করে বশে যার জন্য তাদের ব্যবসা খোয়াতে হয়। যে ৫ টি ভুলের কারণে একজন ব্যবসায়ীর ব্যবসা ধ্বংস হয়ে যেতে পারে নিচে তা নিয়ে আমার ব্যক্তিগত অভিমত তুলে ধরা হলো।

৫ টি ভুল যা আপনার ব্যবসা ধ্বংসের মূল কারণঃ 

একটি ব্যবসা শুরুর আগে হাজার জনের হাজার রকমের উপদেশ। একজন এসে বলে এটা করো, তো আরেকজন বলে আরেক কথা। তবে আপনাকে কেও এসে বলবে না আপনার কোনটা করা উচিৎ না। ফলস্বরূপ, ৫০% ব্যবসা বড়জোড়  ৫ বছর পর্যন্ত সার্ভাইব করতে পারে। স্মল বিজনেস এডমিনিস্ট্রেশন এর মতে প্রায় ৬৬% স্মল বিজনেসগুলো ২ বছর টিকে থাকতে পারে। এই বিজনেসগুলো ধ্বংসের মূল কারণ কি? চলুন জেনে নেওয়া যাক।

১. পরিকল্পনার অভাবঃ

একটা বিজনেস করতে গেলে সবার আগে দরকার পরিকল্পনা। প্রতিটি সফল বিজনেস এর পেছনেই লুকিয়ে আছে তাদের যুগোপযোগী পরিকল্পনা। পরিকল্পনা ছাড়া কোনো কিছুই ঠিকঠাক মত করা সম্ভব নয়। একটা বিজনেস শুরু করার আগে সেই বিজনেস নিয়ে আপনার থাকতে হবে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা। ৫ বছর পর আপনি আপনার বিজনেস টা কে কোন অবস্থায় দেখতে চান তার একটা ডেমো তৈরি করুন। এবং সেই অনুযায়ী কাজ চালিয়ে যান। প্রতিদিনের কাজ সফল ভাবে করার জন্য একটা টু ডু লিস্ট তৈরি করুন। যাতে দিনের কোনো কাজ-ই মিস না হয়ে যায়। আভাবে পরিকল্পনা মাফিক কাজ করলে আপনার বিজনেস এ সফলতা আসতে বাধ্য।

২. নেতৃত্ব প্রদানের অভাবঃ 

ধরুন আপনি একটি বিজনেস কোম্পানি শুরু করলেন, আস্তে আস্তে কর্মীদের  সংখ্যা বাড়ালেন। তাহলে অফিসের কর্তৃত্ব করবে কে? নিশ্চয়ই আপনি। এখন আপনাকে আপনার অবস্থান ঠিক রাখতে হলে দরকার সঠিক নেতৃত্ব প্রদানের সক্ষমতা। সবাই কিন্তু একজন লিডার হিসেবে নেতৃত্ব প্রদানের ক্ষমতা রাখে না। আর এটাই একটা ব্যবসা ধ্বংসের মূল কারণ হয়ে দাঁড়ায়। একজন লিডার এর কাজ তার লিডারশীপ মেইনটেইন করা। একজন লিডার কিংবা অফিসের বস কে অবশ্যই তার কর্মীদের কাজের প্রতি আগ্রহী করে গড়ে তোলার জন্য মোটিভেট করতে হবে। শুধুমাত্র রক্ষণশীল, ককট্টরপন্থী হয়ে কখনোই একটা বিজনেস কোম্পানি চালানো যায় না। আপনাকে বিনয়ের সাথে নেতৃত্ব প্রদান করতে হবে। প্রতিটি কর্মীর দিকে খেয়াল রাখতে হবে তারা কেমন কাজ করছে। একজন লিডার এর কাজ হলো তার নেতৃত্বের স্থান বজায় রেখে কর্মীদের কাজের প্রতি ইন্সপায়ার এবং মোটিভেট করা। তাই কোম্পানি তে নেতৃত্ব প্রদানে সঠিক লোক না থাকলে সেই কোম্পানির ধ্বংস অনিবার্য।

৩. কাস্টমার কে ম্যানেজ করতে না পারাঃ

আপনি একজন ব্যবসায়ী হলে আপনাকে অবশ্যই কাস্টমার কে ম্যানেজ করার সক্ষমতা থাকতে হবে। হতে পারে সে টা আপনার অফিসের কর্মী কিংবা কাস্টমার। একজন কাস্টমার কে আপনি ম্যানেজ করতে ব্যর্থ হলে তার থেকে অবশ্যই খারাপ ফিডব্যাক পাবেন। যেমনঃ মিস ম্যানেজমেন্ট, নানা ধরনের কমপ্লেইন, সমালোচনা ইত্যাদি। এমনকি আপনি যদি আপনার অফিসের কর্মীদের ম্যানেজ করতে না পারেন তাহলে সে টা হবে আপনার বিজনেস এর জন্য ক্ষতিকর। কারণ অফিস কর্মীদের ম্যানেজ করতে না পারা মানে তাদের কাছ থেকে ভালো আউট পুট পাওয়ার আশা ছেড়ে দেওয়া। তাই ব্যবসা যাতে ধ্বংস না হয় তার জন্য আপনাকে ঠিক মতো সবাইকে ম্যানেজ করার সক্ষমতা অর্জন করতে হবে।

৪. বিজনেস মার্কেটিংঃ

উপরে বর্নিত ভুলগুলোর চেয়েও এই ভুল টা একটা ব্যবসা কে ধ্বংস করে দিতে পারে। ব্যবসা শুরু করলেন অথচ মার্কেটিং কিভাবে করতে হয় তা জানলেন না তাহলে আপনার ব্যবসা টিকবে না। মার্কেটিং হলো আপনার বিজনেস এর প্রোডাক্টগুলোর প্রচার প্রচারণা চালানো। আপনার প্রোডাক্টগুলো কেনো অন্য সব বাজারের প্রোডাক্টগুলো থেকে আলাদা তা জনগণ কে জানানো যায় মার্কেটিং এর মাধ্যমে। অনলাইন বিজনেসগুলোর মার্কেটিং ডিজিটাল প্রক্রিয়ায় করা হয়। আপনি আপনার বিজনেস এর মার্কেটিং বিভিন্ন ধরনের সোশ্যাল মিডিয়া যেমনঃ ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ, ইন্সটাগ্রাম ইত্যাদির মাধ্যমে করাতে পারবেন। এখন যদি প্রশ্ন জাগে আপনার মনে এই সোশ্যাল মিডিয়ায় কিভাবে আমি বিজনেস মার্কেটিং করবো? হ্যাঁ, আপনি আপনার বিজনেস এর মার্কেটিং করবেন বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ায় এডভারটাইজিং এর মাধ্যমে। তবে মনে রাখবেন মার্কেটিং যেমন বিক্রয় বাড়ায় তেমনি অতিরঞ্জিত মার্কেটিং করলে সে টা আপনার বিজনেস এর জন্য বরং ক্ষতি। ডিজিটাল মার্কেটিং এর মধ্যে শুধু সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং নয়, আপনি আপনার বিজনেস এর জন্য সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং, ই-মেইল মার্কেটিং, সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন ইত্যাদির মাধ্যমে বিজনেস এর মার্কেটিং করতে পারবেন এবং অতি সহজে টার্গেটেড কাস্টমার খুঁজে পাবেন। সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এর মাধ্যমে আপনি আপনার কমার্শিয়াল ওয়েবসাইট কে সবার হাতের নাগালে পৌঁছে দিতে পারবেন। কারণ সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন হলো এমন একটি প্রক্রিয়া যেখানে কিওয়ার্ডগুলো কে সার্চ ইঞ্জিন এর অ্যালগরিদম মেনে বৈধ উপায়ে অপটিমাইজড করা হয়। যার ফলে কিওয়ার্ডগুলো গুগলের ফার্স্ট পেজে র‍্যাংক করে। কোনো কাস্টমার আপনার ওয়েবসাইট এর কিওয়ার্ড লিখে সার্চ করলে আপনার ওয়েবসাইট টি তে বিদ্যমান কিওয়ার্ডগুলো সার্চ ইঞ্জিন এর ফার্স্ট পেজে শো করবে। এবং স্বভাবতই একজন মানুষ সার্চ ইঞ্জিন এর ফার্স্ট পেজে থাকা ওয়েবসাইটগুলো তেই ক্লিক করবে। এবং সেখান থেকে তারা তাদের পছন্দসই প্রোডাক্ট ক্রয় করবে। তাহলে বিজনেস মার্কেটিং এ আর ভুল নয়। সোশ্যাল মিডিয়া তে এ্যাড ক্যাম্পেইন চালু করুন অথবা সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন, সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং, ই-মেইল মার্কেটিং ইত্যাদির মাধ্যমে বিজনেস এর মার্কেটিং করুন। আমাদের আছে সকল ধরনের মার্কেটিং সার্ভিস,আপনার কোনটি প্রয়োজন? তাই আজই যোগাযোগ করুন আমাদের সাথে আর ব্যাবসাকে বড় করুন

৫. কাস্টমারদের মন জয় করাঃ

ব্যবসার ক্ষেত্রে কাস্টমারদের মন জয় করতে না পারা টা ব্যবসা ধ্বংসের অন্যতম একটি কারণ। ধরুন আপনি একটি ড্রেস কিনতে গেলেন দোকানে। সেখানে আপনাকে অনেকগুলো ড্রেস দেখালো কিন্তু আপনাকে ড্রেস টা কেনার জন্য কেও ইম্প্রেস করলো না কিংবা ড্রেস টা কোন ফেব্রিকস দিয়ে তৈরি, পরে আরামদায়ক কিনা, কতো টুকু কাপড় আছে এর কিছুই আপনাকে বললো না। সত্যি কথা বলতে আপনি ওই দোকান থেকে ড্রেস টি কখনোই কিনবেন না। বরং যে দোকানদার বিনয়ী, যে আপনাকে তার প্রোডাক্টসের ডিটেইলস বলবে এবং পাশাপাশি আপনাকে প্রোডাক্ট টি কেনার জন্য ইম্প্রেস করবে, আলটিমেটলি আপনি তার থেকেই প্রোডাক্ট টি কিনবেন। অনলাইন বিজনেস এর ক্ষেত্রে ও কাস্টমারদের মন এভাবেই জয় করতে হয়। আপনি যদি মানুষের মন জয় করতে না পারে, কাস্টমারদের প্রশ্নের উত্তর দিতে বিরক্ত বোধ করেন তাহলে আপনার এই পেশায় আসার দরকার নেই। দিন শেষে একজন সফল ব্যবসায়ী সে যে কাস্টমারদের প্রোডাক্ট টি ক্রয় করার জন্য ইনফ্লুয়েন্স করতে পারবে।

পরিশেষেঃ

আপনি যদি একজন নতুন ব্যবসায়ী হয়ে থাকেন তাহলে উপরে উল্লেখিত ৫ টি ভুল যেগুলো আপনার ব্যবসা ধ্বংস করে দিতে পারে সেগুলো যথাসম্ভব এড়িয়ে চলুন। আর অনলাইন বিজনেস কে প্রচার করার জন্য আমরা আছি ডিজিটাল মার্কেটিং এজেন্সি  নিয়ে। যেখান থেকে আপনি আপনার অনলাইন বিজনেস এর জন্য ফেসবুক এডভারটাইজিং কিংবা সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এর মতো বিভিন্ন ধরনের ডিজিটাল মার্কেটিং এর সার্ভিস পাবেন। যার ফলে আপনার ব্যবসার পরিচিতি বাড়ার সাথে সাথে বিক্রয় বৃদ্ধি পাবে। তাই  ডিজিটাল মার্কেটিং এর যে কোনো সেবা পেতে আজই যোগাযোগ করুন । যারা বহু বছর ধরে তাদের

সেবার মাধ্যমে জনগণের মনে যায়গা করে নিয়েছে।

Code: 33799


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *