বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১২:৫৬ অপরাহ্ন

নতুন ওয়েবসাইট এর জন্য ওয়েব ডিজাইন কেমন হওয়া উচিৎ?

Reporter Name / ২৪৪ Time View
Update Time : বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১২:৫৬ অপরাহ্ন

র্তমান বিশ্বে অনলাইনে কোন প্রতিষ্ঠান বা সংস্থা কে তাদের গ্রাহকদের সামনে উপস্থাপন অথবা তাদের সাথে যুক্ত করতে ওয়েবসাইট অন্যতম একটি মাধ্যম হয়ে দাঁড়িয়েছে। একটি ওয়েবসাইট আপনার সম্ভাব্য গ্রাহককে স্বতন্ত্রভাবে আপনার ব্যবসার সাথে যুক্ত হওয়ার জন্য পথ উন্মোচোন করে দেয়। বর্তমানে গ্রাহকদের আগ্রহ, রুচি এবং চাহিদার সাথে সামঞ্জস্য রেখে তাদের সেবা প্রদানের জন্য প্রতিটি ব্যবসার জন্য ওয়েবসাইট থাকা জরুরি। একটি প্রফেশনাল মানের ওয়েবসাইট তার ভিজিটরদের জন্য, তাদের চাহিদা অনুযায়ী তথ্য প্রদান করতে সক্ষ্যম হয়। আর তাতে করে যেকোন পন্য বা সেবা বিক্রির সম্ভবনাও বেড়ে যায়। তবে কখনো, কখনো নতুন হিসাবে কোন ব্যক্তির জন্য একটি নতুন ওয়েবসাইট ডিজাইন কেমন হওয়া উচিৎ তা নির্ধারন করা চ্যালেন্জিং হয়ে যায়।

তবে আজকের এই আর্টিকেল দ্বারা আমরা আপনার সাথে শেয়ার করবো একটি নতুন ওয়েবসাইট এর জন্য ওয়েব ডিজাইন কেমন হওয়া উচিৎ। তবে তার আগে আপনাকে জানতে হবে ওয়েব ডিজাইন কি? যা আপনাকে আপনার জীবনের প্রথম ওয়েবসাইটটি ডিজাইনে হেল্প করতে পারে। আপনি চাইলে আমাদের ডিজাইনকৃত রেডি ই-কমার্স ওয়েবসাইট গুলো দেখতে পারেন।

চলুন তবে প্রথম থেকে শুরু করা যাক,

ওয়েব ডিজাইন

প্রফেশনাল ব্র্যান্ডিং লুকঃ

প্রথমত আপনি কি ধরনের ব্যবসা পরিচালনা করছেন, তা ছোট অথবা বড় ভুলে যেতে হবে, এবং আপনার ব্র্যান্ড আইডেন্টিকে তুলে ধরার দিকে মনোযোগ দিতে হবে। যাতে করে কোনো অডিয়েন্স আপনার ওয়েবসাইটে আসলেই যেন, আপনি যেসকল সেবা প্রদান করছেন সেটি সম্পর্কে একটি ইতিবাচক ধারণা পায় এবং আপনার পণ্য অথাবা সেবার প্রতি তার বিশ্বাসযোগ্যতা এবং গ্রহনযোগ্যতা বেড়ে যায়। অন্যান্যদের তুলনায় আপনার ব্যবসায়িক ওয়েবসাটটিকে ইউনিক করে তুলতে সুন্দর একটি প্রফেশনাল মানের লোগো তৈরি করতে পারেন।

সম্পূর্ন ওয়েবসাইট এর জন্য গ্রাফিক্স এবং ইন্টারফেস এর সাথে মিল রেখে এমন একটি ফন্ট নির্বাচন করুন যেটা ভিজিটরদের চোখে ভালো লাগে এবং পছন্দ করে। আপনার ব্যবসার ধরন কেমন তার উপর ভিত্তি করে সহজে ব্যবহারযোগ্য এবং প্রফেশনাল মানের ওয়েবসাইট টেমপ্লেট নির্বাচন করুন।

গুরুত্বপূর্ন যে বিষয়টি মনে রাখতে হবে তা হলো, যেকোন ওয়েবসাইটের হোমপেজ হলো সবথেকে গুরুত্বপূর্ন। সেটা হোক ওয়েসাইট এর উদ্দেশ্য বোঝাতে অথাবা প্রথম দৃষ্টিতেই ভিজিটরদের আকৃষ্ঠ করতে। আর যে কারনে হোমপেজ এর ডিজাইন এবং ডেভেলপমেন্টে বেশি গুরুত্ব দেওয়া উচিৎ তা হলো এটিই যেকোন ওয়েবসাইটের  অধিক ভিজিটকৃত ওয়েবপেজ।

 

গুগলের জন্য সহজে ক্রলযোগ্য ওয়েবসাইট স্ট্রাকচারঃ

গুগলের কাছে এটেনশন পেতে, ওয়েবসাইটের ফেসভ্যালু বাড়াতে ‍এবং গুগলবট যাতে সহজে ক্রল করতে পারে এমন সহজ ওয়েবসাইট স্ট্রাকচার গড়ে তুলতে হবে। কারন সার্চ ইঞ্জিন  এর রেজাল্ট পেজগুলোতে প্রতিদন্ধিদের পিছনে ফেলতে এটি একটি সেরা এসইও টেকনিক।

কোন ওয়েবসাইট ডিজাইনের পূর্বে আমাদের বুঝতে হবে যে আসলে ওয়েবসাইট কি? তা ব্যবাহরের উদ্দেশ্য, ভিজিটররা ওয়েসাইটে এসে কি ধরনের এ্যাকশন নিতে পারে এবং কি ধরনের ফিচার থাকলে ইউজার নেভিগেশনে সুবিধা হবে ইত্যাদি মাথায় রেখে ডিজাইন করতে পারি।

রেস্পন্সিভ ওয়েব ডিজাইনঃ

সর্বদায় আপনার বিজনেস ওয়েবসাইটটিকে একজন ভিজিটর বা কাস্টমারের দৃষ্টিকোণ থেকে বিবেচনা করুন। আপনি কোন প্রফেশনাল বিজনেস ওয়েবসাইট থেকে তাদের সেবাগুলো কিভাবে প্রত্যশা করেন? ঠিক সেভাবেই আপনি আপনার সাইটিকে কাস্টমারদের জন্য সকল ডিভাইসে সহজে ব্যবহারযোগ্য করে তুলুন। আপনার ওয়েবসাইট এর ডিজাইন লেআউট এবং ইউজার ইন্টাফেস এর উপর এমনভাবে যত্নশীল হোন, যাতে যেকোন ভিজিটর তাদের সম্ভাব্য সমাধান সহজেই খুজে পায়। এর তাতে করেই আপনার সাইটের আডিয়েন্স আপানার ওয়েবসাইটে বারবার ফিরে আসবে।

ওয়েসাইট এর ডিজাইনকে রেস্পন্সিভ করতে আপনি যেকোন প্রি-মেইড থিম অথবা লেআউট ব্যবহার করতে পারেন। আর যদি আপনি একজন প্রফেশনাল ওয়েব ডিজাইনার না হয়ে থাকেন অথবা এ ব্যাপারে আপনার অভিজ্ঞতা খুবই কম হয়ে থাকে তাহলে, অন্য যেকোন ওয়েবসাইট অথবা থিম থেকে আইডিয়া নিতে পারেন। আর ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহারকারীদের জন্য এটি আরো সহজ। কারণ আপনি ফ্রি অথবা পেইড দুভাবেই অনেক রেডি টু ইউজ ওয়ার্ডপ্রেস থিম পেয়ে যাবেন। এ ছাড়াও বর্তমানে অনেক প্রতিষ্ঠান রয়েছে যারা প্রফেশনাল মানের রেডিমেড ওয়েবসাইট নিয়ে কাজ করছে। যা সর্ব সাধারনের হাতের নাগালেই রয়েছে। আপনি চাইলে এমন একটি রেডিমেড ওয়েবসাইট নিতে পারেন যা আপনার ব্যবসার জন্য সুফল বয়ে আনবে এবং আপনার মূল্যবান সময় বাচিয়ে দেবে ।

 

সহজে চোখে পড়ে এমন যোগাযোগের তথ্যঃ

আপনার ওয়েবসাইট এর মূল উদ্দেশ্যই হলো যাতে সবাই আপনার সেবা/ব্যবসা সম্পর্কে জানতে পাারে এবং সেবা গ্রহন করতে পারে। গ্রহকরা কি ধরনের সেবা পেতে পছন্দ করে, তাদের প্রশ্ন গুলো কি, সবকিছু জানাতে একটা স্বচ্ছ যোগাযোগ মাধ্যম থাকা উচিৎ। এবং সেটা অনলাইন এবং অফলাইন দুই মাধ্যমেই প্রযোজ্য। আপনার যোগাযোগের সকল মাধ্যম সংবলিত একটি ওয়েবপেজ ‍রাখতে হবে এবং মেনুবারে তার স্পষ্ট  উল্লেখ থাকতে হবে। যাতে করে ভিজিটররা খুব সহজেই তা খুঁজে পান অথবা আপনি ওয়েবসাইটের টপবারে যোগাযোগের জন্য ই-মেইল রাখতে পারজে-যা প্রতিটি পেজেই প্রদর্শিত হবে।

 

সিম্পল ডিজাইন কিন্তু ইউনিক করুনঃ

যেকোন মানুষ তাদের সকল সমস্যার সহজ এবং সঠিক সমাধান পেতে পছন্দ করে থাকে। তাই আপনার ওয়েসাইটের ভিজিটররা কি ধরনের সমস্যার সমাধানের খোজেঁ আপনার ওয়েবসাইট ভিজিট করে থাকে তাদের সেই উদ্দেশ্যগুলোকে বুঝতে চেষ্ঠা করুন। এবং তাদেরকে সেই সকল সমস্যার যথাসম্ভব সহজ সমাধান দেওয়ার মত করেই আপনার ওয়েবসাইটের ডিজাইন টেম্পেলেট পছন্দ করুন। আর আপনার ওয়েবসাইট এর ডিজাইনে এমন ইউনিকনেস আনার চেষ্ঠা করুন যাতে ভিজিটরদের প্রথম দর্শনেই দৃর্ষ্টি কাড়তে সমর্থ হন।

যদি আপনি কোন ওয়েব ডেভেলপমেন্ট কোম্পানির থেকে আপনার ওয়েবসাইটটি ডেভেলপমেন্ট করে নিয়ে থাকেন, তাহলে নিশ্চিত হোন আপনার ওয়েবসাইটের হোমপেজটি অন্যান্য পেজগুলোর জন্য নির্দেশক হিসাবে কাজ করছে। এবং অন্যান্য পেজগুলোর সাথে ডিজাইনগত সামঞ্জস্যতার সাথে সাথে ভালোভাবে লিংক করা আছে। আপনার ওয়েবসাইটের দ্বারা আপনার ব্যবসার ব্রান্ডভ্যালুকে প্রকাশ করতে অপ্রয়জনিয় ফিচারসমূহ বাদ দিয়ে দিন।

 

ওয়েব ডিজাইনপণ্য/সেবা গুলো ভালোভাবে প্রদর্শন করুনঃ

আপনাকে অবশ্যই আপনার পণ্য/সেবার প্রদর্শন আপনার সম্ভাব্য গ্রাহকদের নিকট সুন্দর ভাবে উপস্থাপন করতে হবে। এই পর্যায়ে আপনার গ্রাকদের ফাস্ট  ইম্প্রেশন ধরে রাখার জন্য যথেষ্ঠ সতর্ক থাকতে হবে। গ্রাহকদের আপনার পণ্য/সেবা সম্পর্কে পরিষ্কার ধারনা দিতে উপযুক্ত ও ভালোমানের ছবি এবং বর্ণনা সহকারে প্রোডাক্ট পেজ ডেভেলপ করতে হবে।

আপনার প্রোডাক্ট এর ধরন ভেদে সেগুলোকে আলাদা আলাদা ক্যাটাগরিতে ভাগ করে সাজাতে পারেন। অথবা প্রয়োজনভেদে ক্যাটেগরির অধীনে উপ-ক্যাটেগরিও রাখতে পারেন। গ্রাহকদের বিশ্বাস এবং সন্তুষ্টি অর্জনের দিকে বিশেষভাবে যত্নশীল হতে হবে।

 

মোবাইল ফ্রেন্ডলি ওয়েবসাইটমোবাইল ফ্রেন্ডলি ডিজাইনঃ

খেয়াল রাখতে হবে কোন একটি সিঙ্গেল পেজে অতিরিক্ত তথ্য সংবলিত করার জন্য ডিজাইনকে জটিল করা যাবেনা। আপনার ওয়েবসাইট এর ডিজাইনকে ইউজার ফ্রেন্ডলি রাখতে একটি নিরবিচ্ছিন্ন ইন্টারফেস গ্রাকদের পজিটিভ দৃষ্টিভঙ্গি তৈরিতে সাহায্য করে। মনে রাখবেন, আপনি যদি আপনার ব্যবসার সাথে আপনার গ্রাহকদের সু-সম্পর্ক গড়ে তুলতে না পারেন তাহলে দীর্ঘমেয়াদে তা ব্যবসার জন্য ক্ষতির কারণ হতে পারে।

বর্তমানের প্রায় বেশির ভাগ ভিজিটরই মোবাইল ইউজার, আর এইজন্য আমাদের ওয়েবসাইটটিকে মোবাইল ডিভাইজগুলোর জন্য আপটিমাইজ করে ডিজাইন এবং ডেভেলপ করতে হবে। এবং সাথে সাথে আরও একটি বিষয় মাথায় রাখতে হবে ওয়েবসাইটটি যেন দ্রুত লোড হয়।

 

প্রফেশনাল ওয়েব ডিজাইনার এবং ডেভেলপার বাছুনঃ

আপনার ব্যবসার জন্য ওয়েবসাইট তৈরি করা এবং সেটা কিভাবে ম্যানেজ করবেন সেটা একান্তই আপনার ব্যক্তিগত। কিন্তু একবার চিন্তা করুন সেটি যদি হয় কোন প্রফেশানাল এবং আন্তর্জাতিক মানের সুপারভিশন এর অধীনে তাহলে আপনি খুব সহজেই আপনার প্রতিদন্ধীদের থেকে ভালোভাবে ব্যবসার পরিচয় গড়ে তুলতে পারবেন।

আমরা ইয়াপ্পোবিডি, বাংলাদেশে অবস্থিত আন্তর্জাতিক মানের একটি ওয়েব ডেভেলপমেন্ট এবং ডিজিটাল মার্কেটিং কোম্পানি। ওয়েব ডিজাইন থেকে শুরু করে ডেভেলপমেন্ট এবং আপনার ব্যবসার সকল প্রকার প্রোমোশনের কাজটাও আমরা করে থাকি। আমরা চেষ্টা করি আপনার ব্যবসার সকল কিছু পর্যবেক্ষন করে সে অনুযায়ী পদক্ষেপ নিতে,যাতে করে আপনার ব্যবসার পরিধি বৃদ্ধি ঘটে। তাই আমাদের যেকোন সার্ভিস পেতে আজই যোগাযোগ করুন আমাদের সাথে।

 

শেষ কথাঃ

পরিশেষে, বলতে চাই একজন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ি হিসাবে একটি ব্যবসায়িক ওয়েবসাইট গড়ে তোলা অনেকটাই চ্যালেন্জিং। এবং নিয়মিত ব্যবসাকে আপডেট রাখা, গ্রাহকদের চাহিদাকে বোঝা এবং পাশাপাশি ইনভেস্টমেন্ট থেকে প্রফিট বের করা সহ অনেক বিষয়ই জড়িত থাকে। তবে আশা করা যায় আমাদের এই আর্টিকেলটি আপনার ওয়েব ডিজাইন এর কন্সেপ্টটি অনেকটাই পারিষ্কার করে দেবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *